গোটা ভারতের ৯৮ শতাংশ করাল করোনার থাবায়, ৬৪০ জেলার ৬২৭ টিতে রয়েছে কোভিড সংক্রমণ

desinews

ভারতে করোনা সংক্রমণ মামলা বাড়তে বাড়তে ১০ লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে ৷ আর এই মারণ রোগ ইতিমধ্যেই ২৫ হাজার মানুষের প্রাণ নিয়েছে ৷ দ্য লেন্সেট (Lancet Global Health) একটি রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতের ৯৮ শতাংশ এলাকা এখন এই মারণ ভাইরাসের থাবায় ৷ আমেরিকার পরেই ভারতে সংক্রমণ সবচেয়ে তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়ছে ৷ দেশের ৬৪০ জেলার ৬২৭ জেলায় ইতিমধ্যেই সংক্রমণ ছড়িয়েছে ৷

এই রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে হলে জেলা স্তরে যোজনা তৈরি করতে হবে এবং দ্রুত তা কার্যকর করতে হবে ৷ এর পাশাপাশি একেবারে যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে স্ট্র্যাটেজি তৈরি করে কাজ করতে হবে ৷ যেসব জায়গায় দ্রুত সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে সেখানে লকডাউন ও অন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কার্যকরী প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে ৷ প্রতি জায়গার জনবসতি ও স্বাস্থ্য পরিষেবার পরিস্থিতির ওপর ভিত্তি করেই করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য লড়াই করতে হবে ৷

লন্ডনের এই সংস্থার রিসার্চ অনুযায়ী ভারতের ৯ টি রাজ্যে পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ ৷ এরমধ্যে রয়েছে মধ্যপ্রদেশ, বিহার, তেলেঙ্গানা, ঝাড়খণ্ড, উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা ও গুজরাত রয়েছে ৷ ভারতের উত্তরপূর্ব রাজ্যগুলিতে পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ ৷ লেন্সেটের রিপোর্ট অনুযায়ী সামাজিক -আর্থিক , জনসংখ্যা, পারিপার্শ্বিক স্বচ্ছ্বতা , মহামারী বিজ্ঞান এই সব কিছুর নানা দিক দেখে এই রিসার্চের ফল সামনে আনা হয়েছে ৷ এই সবকটি একক মিলিয়ে তৈরি হচ্ছে ওভারঅল ভালনারেবিলিটি -যার অর্থ সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা ৷ এই নিরিখে সবচেয়ে খারাপ জায়গায় মধ্যপ্রদেশ৷ দুই ও তিন নম্বরে যথাক্রমে বিহার ও তেলঙ্গানা৷ চতুর্থ স্থানে রয়েছে ঝাড়খণ্ড ও পঞ্চম স্থানে উত্তরপ্রদেশ

ভারতে এখনও অবধি সবচেয়ে সুরক্ষিত স্থান অরুণাচল প্রদেশ ৷ তার কুরঙ্গু জেলা- করোনা সংক্রমণের সময় সবচেয়ে সুরক্ষিত স্থান বলে চিহ্নিত হয়েছে ৷ এরপর হরিয়ানার পঞ্চকুলাতে সংক্রমণ সবচেয়ে কম ছড়িয়েছে ৷ সংক্রমণ সবচেয়ে ছড়িয়েছে মধ্যপ্রদেশের সাতনা ও বিহারের খাগাড়িয়া জেলায় ৷ ভারতের জনসংখ্যা পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় ৷ তাই এই পরিস্থিতিতে কোনওভাবেই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ আটকানো সম্ভব নয় ৷

ভারতের সরকারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশের ৮০ শতাংশ কেসে রোগীর শরীরে কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না৷ সেই কারণেও অন্যদেশের থেকে ভারতে সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়ার বিপদ বেশি ৷

 

You may like

COVID-19 Live Updates